🎤CAA নিয়ে মমতার বক্তব্য 🎤
#CAA #NRC #WestBengal #MamataBanerjee সুর চড়িয়েছেন রাজ্যপাল। রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি তুলতে শুরু করেছেন বিজেপি নেতারা। কিন্তু মহামিছিল শেষে মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট বুঝিয়ে দিলেন— পিছু হঠার কথা ভাবছেনই না তিনি। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন(সিএএ) এবং জাতীয় নাগরিক পঞ্জির বিরুদ্ধে সুর আরও চড়িয়ে সোমবার মমতার ঘোষণা— আমার মৃতদেহের উপর দিয়ে কার্যকরী করতে হবে ওই আইন। নাম না করে রাজ্যপালকেও তীব্র আক্রমণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী। বাংলার অবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তোলার আগে বিজেপি শাসিত অসম নিয়ে ভাবুন— সুর সপ্তমে চড়িয়ে মন্তব্য মমতার। সিএবি সংসদে পাশ হওয়ার পরেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন উত্তর ও দক্ষিণ কলকাতা এবং হাওড়া জুড়ে তিন দিন মহামিছিল করবে তৃণমূল। কথা মতো সোমবার রেড রোড থেকে জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার পদযাত্রা করেন তিনি। সঙ্গে ছিল বিশাল মিছিল।মিছিল শেষ জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ির সামনে ভাষণ দেন তৃণমূল চেয়ারপার্সন তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সিএএ এবং এনআরসি যে পশ্চিমবঙ্গে কার্যকরী হতে দেবেন না, সে কথা আগে থেকেই নানা মাধ্যমে বলছিলেন মমতা। এ দিনের ভাষণে আরও জোর দিয়ে তিনি বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গে সিএএ বা এনআরসি কিছুতেই কার্যকরী করতে দেবেন না।‘‘আমরা বাংলায় আছি। এখানে এনআরসি করতে হলে, আমার মৃতদেহের উপর দিয়ে করতে হবে, এখানে সিএবি করতে হলে আমার মৃতদেহের উপর দিয়ে করতে হবে,’’— এই ভাষাতেই এ দিন নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে সুর চড়ান মমতা।তাঁর সরকার ফেলে দিয়ে যদি পশ্চিমবঙ্গে রাষ্ট্রপতি শাসন জারির চেষ্টাও হয়, তা হলেও তিনি পিছু হঠবেন না— মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিন খুব স্পষ্ট করে এই বার্তাও দিয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘‘কোনও কোনও বিজেপি নেতা বলতে শুরু করেছেন, বাংলায় রাষ্ট্রপতি শাসন কেন জারি হবে না? আমাদের সরকার ফেলে দেবেন? ফেলে দিন। কিন্তু ইজ্জতের জন্য যখন লড়তে নেমেছি, তখন মাথা নত করব না।’’রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের নাম এ দিন করেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তাঁর ইঙ্গিত বেশ স্পষ্ট ছিল। তিনি বলেন, ‘‘এখানে আর একজন বড় বিজেপি নেতা এসেছেন। বলছেন— সাবধান করে দিচ্ছি, কেন অশান্তি হচ্ছে? আমি বলেছি, আগে অসমকে গিয়ে বলুন। সেখানে বিজেপির সরকার রয়েছে, তাদের বলুন।’’ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি যে সব সময়ই রাজ্যের বিষয় এবং সে বিষয়ে কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপের কোনও চেষ্টা যে তিনি পছন্দ করেন না, তা আগেও অনেক বার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বুঝিয়ে দিয়েছেন। গত চার দিনে রাজ্য জুড়ে উত্তপ্ত পরিস্থিতির প্রেক্ষিতেও যে তিনি সেই অবস্থানেই অনড় রয়েছেন, মমতা এ দিন তা-ও বুঝিয়ে দেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘আমাকে জিজ্ঞাসা করছে, সিআইএসএফ লাগবে? বিএসএফ লাগবে? আমি বলেছি, কিচ্ছু লাগবে না। আমাদের পুলিশই যথেষ্ট।’’ পশ্চিমবঙ্গের সাধারণ মানুষ এবং পুলিশ পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে পরিস্থিতি সামলে নেবেন, কেন্দ্রীয় বাহিনীর প্রয়োজন নেই— এই বার্তাই এ দিন দিতে চেয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।নাগরিকত্ব আইন নতুন করে তৈরি করার কোনও প্রয়োজন ছিল না— এ কথাই এ দিন জোর দিয়ে বলতে চেয়েছেন তৃণমূল চেয়ারপার্সন। জমায়েতের উদ্দেশে এ দিন তিনি প্রশ্ন করেন, ‘‘আপনারা ভোট দেন না? আপনাদের নাম ভোটার তালিকায় নেই? আপনাদের ছেলেমেয়েরা স্কুলে পড়ে না? তা হলে আবার কিসের নাগরিকত্ব আপনাকে দেবে?’’অশান্তির বিরুদ্ধেও এ দিন বার্তা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ট্রেন বা সরকারি সম্পত্তিতে আগুন দেওয়া বা রাস্তা অবরোধ করার বিরুদ্ধে বার্তা দিয়েছেন। তবে তাঁর অভিযোগ, যাঁরা অশান্তি ছড়াচ্ছেন, তাঁরা বিজেপির কাছ থেকে টাকা নিয়েই এই পরিস্থিতি তৈরি করছেন। সিএএ এবং এনআরসি প্রত্যাহার করতেই হবে— কেন্দ্রীয় সরকারকে এ দিন হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মমতা। তাঁর কথায়, ‘‘যত ক্ষণ না প্রত্যাহার করা হচ্ছে, তত ক্ষণ আমরা রাস্তায় আন্দোলন চালিয়ে যাব। মনে রাখবেন, কেউ না থাকলেও, আমরা থাকব।’’ #🔥CAB এর জেরে অশান্ত বাংলা 😨 #রাজ্যে সন্ত্রাস বন্ধ হোক🚫 #🎤CAB নিয়ে মমতার বক্তব্য 🎤 #🎙আজকের শীর্ষ খবর 🎤 #CAB নিয়ে মতামত❓
#

🔥CAB এর জেরে অশান্ত বাংলা 😨

🔥CAB এর জেরে অশান্ত বাংলা 😨 - সরকার ফেলবেন ? ফেলে দিন , কিন্তু মাথা নােয়াব না : মমতা - ShareChat
510 জন দেখলো
1 মাস আগে
কংগ্রেস ও তৃণমূলের আপত্তি বা উত্তর পূর্ব ভারতের বিক্ষোভ সত্ত্বেও সোমবার লোকসভায় পেশ হয়েছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। প্রথম থেকেই এনআরসি ও নাগরিকত্ব বিলের তীব্র বিরোধিতায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার খড়গপুরে সরকারি সভায় ফের নাগরিকত্ব বিলের বিরুদ্ধে সরব মুখ্যমন্ত্রী।বিধানসভা উপনির্বাচনে খড়গপুর সদরে জয় পেয়েছে তৃণমূল। খড়গপুরে কাজের সূত্রে বিভিন্ন ভাষা ও সংস্কৃতির লোক থাকেন। সেই খড়গপুরে গিয়ে ফের একবার এনআরসি ও নাগরিকত্ব বিলের বিরুদ্ধে হুংকার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।এনআরসি ও নাগরিকত্ব বিলের প্রতিবাদে বারবার সরব হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিরোধীদের তীব্র আপত্তি ও উত্তর-পূর্ব ভারতের বিক্ষোভ সত্ত্বেও লোকসভায় সোমবায় পেশ হয়েছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। সেদিনই খড়গপুরে সরকারি সভায় মুখ্যমন্ত্রী অভয় দিলেন, কোনও বিভাজন হবে না।পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি আতঙ্কে আত্মহত্যার মত অভিযোগও উঠে এসেছে। ভয় না পেয়ে, এনআরসি-র প্রতিবাদে একজোট হওয়ার আহ্বান মমতার। তবে জনগণনার হিসেবে যাতে কোনও ভুল না থাকে, ঠিকানার রেকর্ড যাতে ঠিক থাকে, তাই প্রত্যেককে রেশন কার্ড করানোর আবেদন করেন মুখ্যমন্ত্রী।মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ, বহিরাগতদের দিয়ে বাংলায় অশান্তি ছড়াচ্ছে বিজেপি। তাই কোনও প্ররোচনায় পা না দিতে সতর্ক করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
#

🎤CAB নিয়ে মমতার বক্তব্য 🎤

🎤CAB নিয়ে মমতার বক্তব্য 🎤 - কংগ্রেস ও তৃণমূলের আপত্তি বা উত্তর পূর্ব ভারতের বিক্ষোভ সত্ত্বেও সােমবার লােকসভায় পেশ হয়েছে নাগরিকত্ব সংশােধনী বিল । প্রথম থেকেই এনআরসি ও নাগরিকত্ব বিলের তীব্র বিরােধিতায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । সােমবার খড়গপুরে সরকারি সভায় ফের নাগরিকত্ব বিলের বিরুদ্ধে সরব মুখ্যমন্ত্রী । বিধানসভা উপনির্বাচনে খড়গপুর সদরে জয় পেয়েছে তৃণমূল । খড়গপুরে কাজের সূত্রে বিভিন্ন ভাষা ও সংস্কৃতির লােক থাকেন । সেই খড়গপুরে গিয়ে ফের একবার এনআরসি ও নাগরিকত্ব বিলের বিরুদ্ধে হুংকার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের । এনআরসি ও নাগরিকত্ব বিলের প্রতিবাদে বারবার সরব হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । বিরােধীদের তীব্র আপত্তি ও উত্তর - পূর্ব ভারতের বিক্ষোভ সত্ত্বেও লােকসভায় সােমবায় পেশ হয়েছে । নাগরিকত্ব সংশােধনী বিল । সেদিনই খড়গপুরে সরকারি সভায় মুখ্যমন্ত্রী অভয় দিলেন , কোনও বিভাজন হবে না । পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি আতঙ্কে আত্মহত্যার মত অভিযােগও | উঠে এসেছে । ভয় না পেয়ে , এনআরসি - র প্রতিবাদে একজোট হওয়ার আহ্বান । মমতার । তবে জনগণনার হিসেবে যাতে কোনও ভুল না থাকে , ঠিকানার রেকর্ড যাতে ঠিক থাকে , তাই প্রত্যেককে রেশন কার্ড করানাের আবেদন করেন মুখ্যমন্ত্রী । মুখ্যমন্ত্রীর | অভিযােগ , বহিরাগতদের দিয়ে বাংলায় অশান্তি ছড়াচ্ছে বিজেপি । তাই কোনও প্ররােচনায় পা না দিতে সতর্ক করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । - ShareChat
21.7k জন দেখলো
1 মাস আগে
অন্য কোথাও শেয়ার করুন
Facebook
WhatsApp
লিংক কপি করুন
মুছে ফেলুন
Embed
আমি এই পোস্ট এর বিরুদ্ধে, কারণ...
Embed Post